২৮, জানুয়ারী, ২০২০, মঙ্গলবার

ঢাকা সিটিতে গাজীপুর বরিশাল ও খুলনার ভোটের পুনরাবৃত্তি চাই না: ইসি মাহবুব

ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে গাজীপুর, বরিশাল ও খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের পুনরাবৃত্তি দেখতে চান না বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

তিনি বলেছেন, গত কয়েক বছরে যেসব সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন হয়েছে, তার মধ্যে প্রথম দুটিতে (কুমিল্লা ও রংপুর সিটি কর্পোরেশন) আমাদের সফলতা ছিল। কিন্তু বেশি দিন ‘আপনার রূপে আপনি বিভোর’ থাকা হলো না। সিটি কর্পোরেশনের পরবর্তী পাঁচটি নির্বাচনের তিনটিতে আমি প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত ছিলাম। বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আমি এককভাবে দায়িত্ব পালন করি এবং গাজীপুর ও খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সম্পর্কে আমি প্রতিবেদন তৈরি করতে গিয়ে এই তিনটি নির্বাচনের স্বরূপ সন্ধান করি। কিন্তু এই তিন সিটির নির্বাচনের অভিজ্ঞতা আমার কাছে মোটেও সুখকর নয়। আসন্ন ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে বিগত ওই তিন নির্বাচনের পুনরাবৃত্তি দেখতে চাই না।

বুধবার (২৫ ডিসেম্বর) নির্বাচন কমিশনে নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে আয়োজিত ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন-২০২০ উপলক্ষে রিটার্নিং অফিসার, সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও সহায়ক কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

অবৈধভাবে নির্বাচিতদের জনগণের কাছে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ নয় উল্লেখ করে মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘কেন নির্বাচন নিরপেক্ষ, শুদ্ধ ও গ্রহণযোগ্য হয় না? এ প্রশ্নের উত্তর আত্মজিজ্ঞাসার কারণেই আমাকে খুঁজতে হয়েছে। আমার নিজের অভিজ্ঞতা হচ্ছে, নির্বাচন কমিশন আইনত স্বাধীন; কিন্তু বাস্তব ক্ষেত্রে সেই স্বাধীনতা নির্বাচন প্রক্রিয়ার কাছে বন্দি। এ জন্য নির্বাচন প্রক্রিয়ার সংস্কার প্রয়োজন। নির্বাচন যদি গণতন্ত্রের পূর্বশর্ত হয়, তা হলে গণতন্ত্রের পদযাত্রা অবারিত করতে নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও স্বচ্ছ হতে হবে। অবৈধভাবে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের জনগণের প্রতি বা গণতন্ত্রের প্রতি কোনো কমিটমেন্ট থাকে না।

নির্বাচনী কর্মকর্তাদের দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে হুশিয়ার করে দিয়ে মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সামনে রেখে আমি কোনো নিরাশার কথা শোনাতে চাই না। এই নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার, সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও অন্যান্য সহায়ক কর্মকর্তা প্রশিক্ষণের মাধ্যমে নির্বাচনী দায়িত্ব পালনে যে দক্ষতা ও পারদর্শিতা অর্জন করবেন, তা সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য অপরিহার্য। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, যেহেতু আপনারা সবাই নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তা, সেহেতু আপনারা নিজেদের যোগ্যতা ও দক্ষতাবলে সুষ্ঠু নির্বাচনের অন্তরায় সব অপশক্তিকে পরাজিত করে সাফল্য লাভ করবেন। সবার জন্য সমান সুযোগ সৃষ্টি বা ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড’ তৈরিতে আপনারা নিশ্চয়ই শূন্যসহিষ্ণু নীতি বা ‘জিরো টলারেন্স’ দেখাবেন। এ ক্ষেত্রে আপনাদের শিথিলতাও সহ্য করা হবে না এবং অভিযোগ প্রমাণিত হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ইসি সচিব মো. আলমগীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা। এ ছাড় বক্তৃতা করেন ইসি কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম তালুকদার, বেগম কবিতা খানম, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদত হোসেন চৌধুরী। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক মো. নূরুজ্জামান তালুকদার।

সর্বশেষ নিউজ