২৮, জানুয়ারী, ২০২০, মঙ্গলবার

হিমেল হাওয়া ও তীব্র শীতে কাপঁছে হিলিবাসী

মোঃ আব্দুল আজিজ, হিলি প্রতিনিধি।
হিমেল হাওয়া ও তীব্র শীতে কাঁপছে উত্তরের জনপদ দিনাজপুরের হিলি সীমান্ত এলাকার খেটে কাওয়া ও ছিন্নমুল মানুষরা। অন্যদিকে ঘনকুশায়ায় বোরো বীজতলায় ক্লোড ইনজুরির আশংকা স্থানীয় কৃষকদের মাঝে। লোকসংখ্যা অনুযায়ী সরকারীভাবে বরাদ্দকৃত শীত বস্ত্র এই এলাকার জন্য অপ্রতুল্য। এখন পর্যন্ত সীমান্তবর্তী এই উপজেলায় সরকারীভাবে শীত বস্ত্র হিসেবে প্রায় ১৪শ কম্বল বিতরণ করেছেন উপজেলা প্রশাসন। তবে এবার চোখে পড়ছে না বেসরকারী সংস্থা গুলোর শীত বস্ত্র বিতরণের কার্যক্রম। ঘনকুয়াশা আর হিমেল হাওয়ায় কারনে সকাল থেকে রাস্তা গুলোতে দেখা মিলছে না খেটে খাওয়া ও বিভিন্ন পেশার মানুষদের। শীতকষ্ট নিবারনে খড়কুটা জ্বালিয়ে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষকে আগুন পোহাতে দেখা গেছে।

আজ শুক্রবার হিলির আকাশে এখন পর্যন্ত দেখা মিলেনি সূর্যের আলো। তবে বেলা বাড়ার সাথে সাথে শীতের তীব্রতা আরো বৃদ্ধি পাচ্ছে।

কথা হয় হিলির রিক্সাচালক ইমারনের সাথে তিনি জানান, প্রচন্ড শীত ও হিমেল হাওয়ার কারনে সকাল থেকে মানুষজন রাস্তায় বের হয়নি। আমাদেরও ভাড়া নেই, এখন পর্যন্ত একটি টাকাও উর্পাজন করতে পারিনি। এভাবে শীত আরো বাড়লে আমাদের কষ্ট আরো বাড়বে। উর্পাজন করতে না পারলে সংসার কীভাবে চলবে?

এদিকে কথা হয় স্থানীয় কৃষক মাসুদ, সামসুর ও নাজমুলের সাথে তারা জানান, এভাবে শীতের তীব্রতা বাড়লে আমাদের ফসলের অনেক ক্ষতি হবে। এরকম ঘনকুয়াশা আর দুই একদিন থাকলে বোরো বীজতলা ক্লোড ইনজুরিতে পড়তে পারে। এছাড়াও আমাদের আলু, সরিষার ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার আশংকা রয়েছে।

সর্বশেষ নিউজ